মেনু নির্বাচন করুন
পাতা

ভিশন ও মিশন

জাতীয় মহিলা সংস্থা বিভিন্ন প্রশিক্ষণের মাধ্যমে নারীদের দক্ষ জনবলে রুপান্তরিত করতে কাজ করছে। এরই ধারাবাহিকতায় জাতীয় মহিলা সংস্থার চাঁপাইনবাবগঞ্জ জেলা শাখা বর্তমানে তিনটি ট্রেডের মাধ্যমে নারীদের প্রশিক্ষণ দিচ্ছে।এই তিনটি ট্রেড হচ্ছে, কম্পিউটার, দর্জি এবং নকশি কাঁথা ও কাটিং। সবগুলো ট্রেডের মাধ্যমই নারীদের আত্মকর্মসংস্থানের সুযোগ তৈরি করায় উদ্দেশ্য সংস্থাটির।

  • কম্পিউটার:

গণপ্রজাতন্ত্রী বাংলাদেশ সরকারের মাননীয় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা সবচেয়ে বেশি গুরুত্ব দিচ্ছেন কম্পিউটার শিক্ষাকে। ‘ডিজিটাল বাংলাদেশ’ ধারণার প্রবর্তক মাননীয় প্রধানমন্ত্রী নারীদের কম্পিউটার শিক্ষা গ্রহনে নানামূখি উদ্যোগও গ্রহন করেছেন। এরই ধারাবাহিকতায় জেলাভিত্তিক মহিলা কম্পিউটার প্রশিক্ষণ প্রকল্প (64 জেলা) এর মাধ্যমে জাতীয় মহিলা সংস্থা নারীদের নামমাত্র খরচে কম্পিউটার প্রশিক্ষণ দিচ্ছে। ছয়মাস মেয়াদি ‘কম্পিউটার অফিস অ্যাপ্লিকেশন’ কোর্সের প্রশিক্ষণ দেয়া হয়। কারিগারি শিক্ষা বোর্ডের অধীনে এ প্রশিক্ষণ শেষে প্রশিক্ষনার্থীদের সনদপত্র দেয়া হয়। বছরের জানুয়ারি থেকে জুন এবং জুলাই থেকে ডিসেম্বর –এই দুই মেয়াদে প্রশিক্ষণ দেয়া হয়। প্রতি সেশনে 50 জন করে প্রশিক্ষণের সুযোগ পায়। প্রশিক্ষণ শেষে তিনজনকে অত্র প্রতিষ্ঠানে ইন্টার্নশীপ করার সুযোগও দেয়া হয়। ইন্টার্নশীপকালীন ভাতা দেয়া হয়। 2011 সাল থেকে চাঁপাইনবাবগঞ্জে চালু আছে কম্পিউটার প্রশিক্ষণ কোর্স।

 

  • দর্জি:

নারীদের দক্ষ জনশক্তিতে পরিণত করতে দর্জিবিজ্ঞান প্রকল্পের আওতায় দেয়া হচ্ছে দর্জি প্রশিক্ষণ। এই প্রশিক্ষনে নারীদের হাতে-কলমে পোশাক তৈরি বিষয়ক শিক্ষা দেয়া হয়। এই শিক্ষা গ্রহন করে নারীদের কর্মসংস্থানের সুযোগ সৃষ্টি হচ্ছে। পাশাপাশি অর্থনৈতিক স্বাবলম্বী হচ্ছেন নারীরা। নারীদের প্রশিক্ষণকালীন দৈনিকহারে ভাতা দেয়া হয়। প্রশিক্ষণ শেষে নারীদের মহিলা ও শিশু বিষয়ক মন্ত্রনালয়ের সনদপত্র দেয়া হয়।

 

  • নকশি কাঁথা ও কাটিং:

নগরভিত্তিক প্রান্তিক মহিলা উন্নয়ন প্রকল্পের (দ্বিতীয় পর্যায়) আওতায় নারীদের স্বাবলম্বী করতে এবং কর্মসংস্থান সৃষ্টির জন্য দেয়া হচ্ছে নকশি কাঁথা ও কাটিং প্রশিক্ষণ। এরমাধ্যমে নারীদের হাতে কলমে কাঁথা, শাড়ি, থ্রি-পিস, বিছানার চাদর, কুশন কাভারসহ বিভিন্ন পোশাক তৈরীর প্রশিক্ষণ দেয়া হয়। নারীদের প্রশিক্ষণকালীন দৈনিকহারে ভাতা দেয়া হয়। এই প্রশিক্ষণ শেষে নারীদের মহিলা ও শিশু বিষয়ক মন্ত্রনালয়ের সনদপত্র দেয়া হয়।

 

ছবি


সংযুক্তি


সংযুক্তি (একাধিক)



Share with :

Facebook Twitter